নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজধানীর মোহাম্মদপুরে ওয়াইডব্লিওসিএ মিলনায়তনে সিভিল সোসাইটির সদশ্যবৃন্দ ও সরকারী কর্মকর্তাদের মধ্যে সম্প্রতি এক মতবিনিময় সভায় এই আহ্বান জানানো হয়।

প্রিভেনশন অব চাইল্ড ট্রাফিকিং থ্রু স্ট্রেনদিনিং কমিউনিটি অ্যান্ড নেটওয়ার্কিং (পিসিটিএসসিএন) কন্সোর্টিয়াম এর অন্যতম সদস্য কমিউনিটি পার্টিসিপেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (সিপিডি) পিসিটিএসসিএন এর পক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়াজন করে।

উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ড. আবুল হোসেন। ইনসিডিন বাংলাদেশ এর নির্বাহী পরিচালক একেএম মাসুদ আলী সভাপতিত্ব করেন।

এছাড়া মানব পাচার রোধে প্রণীত ’এনপিএ বাস্তবায়নে সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে ফলো-আপ বৈঠক’ এ সরকারি কর্মকর্তা ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

তারা বলেন, মানব পাচার রোধে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা (এনপিএ) ২০১৮-২২ এর যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য সরকারী কর্মকর্তাদের সহযোগীতায় এগিয়ে আসতে হবে।

সদশ্যবৃন্দ আরো বলেন, এনপিএ এর পাঁচটি উদ্দেশ্য রয়েছে যেমন মানব পাচার রোধ, ক্ষতিগ্রস্ত ও তাদের পরিবারকে সুরক্ষা প্রদান, প্রাসঙ্গিক আইন যথাযথভাবে প্রয়োগ করে ক্ষতিগ্রস্তদের ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা, সংশ্লিষ্ট সকলের অংশগ্রহণ, এবং এনপিএ বাস্তবায়নের মূল্যায়ন করা।

এনপিএ এর নির্দেশনা মতে, স্বরাষ্ট্র মšণালয়ের নেতৃত্বে গঠিত পাচার রোধে পররাষ্ট্র, আইন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক, প্রবাসী কল্যাণ, ধর্ম বিষয়ক, শিক্ষা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা, এলজিআরডি, তথ্য ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি গঠন করা হয়েছে ।

এনপিএ বাস্তবায়নের মাধ্যমে পাচার রোধ করার জন্য উক্ত কমিটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে সিভিল সোসাইটির সদশ্যবৃন্দ অভিমত ব্যক্ত করেন।

পিসিটিএসসিএন সচিবালয়ের সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট মো. রফিকুল ইসলাম খান আলম মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

এছাড়া সিনিয়র সহকারী জাজ ও ঢাকা জেলার আইনী সহায়তা কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন বাংলাদেশ এর উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম, টিডিএইচ-নেদারল্যান্ডসের বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর মাহমুদুল কবির, এবং ঢাকা জেলার শিক্ষা অফিসার বেনজির আহমেদ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।