কূটনৈতিক প্রতিবেদক: এই প্যাকেজ ঘোষণার ফলে ভারত শাসিত জম্মু-কাশ্মিরের স্থানীয় বাসিন্দারা এখন আগামী এক বছরের জন্য পানি ও বিদ্যুৎ বিলের ৫০ শতাংশ ছাড় পাবেন । আর ব্যবসার জন্য যারা ব্যাংক ঋণ নিয়েছেন, আগামী ৬ মাসের জন্য তাদের প্রত্যেককে সুদের ওপর ৫ শতাংশ করে ছাড় দেওয়া হবে।

আজ (১৯ সেপ্টেম্বর) শনিবার এই আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেন জম্মু-কাশ্মিরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর (উপ রাজ্যপাল) মনোজ সিনহা। এই উপত্যকার সাধারণ মানুষ, ছোট ও মাঝারি ব্যবসায়ী এবং পর্যটন শিল্পের জন্য একাধিক পদক্ষেপের ঘোষণা দেন তিনি।

মনোজ সিনহা বলেন, আমরা জম্মু-কাশ্মিরের জন্য ১,৩৫০ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজে অনুমোদন দিয়েছি। উপত্যকার ব্যবসায়ী সম্প্রদায় কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। তাদের জন্য এই ঘোষণা করতে পেরে খুশি আমি। এর আওতায় আত্মনির্ভর ভারত প্রকল্প এবং স্থানীয় প্রশাসনের নেওয়া পদক্ষেপের বাইরেও অতিরিক্ত সুযোগ সুবিধা পাবেন তারা। ২০২১ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত ঋণগ্রহীতাদের কোনো স্ট্যাম্প ডিউটিও দিতে হবে না বলে জানান তিনি।

মনোজ সিনহা আরো বলেন, আমরা চলতি অর্থবছরে বিনা শর্তে ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের ঋণগ্রহীতাদের সুদের ওপর ৫ শতাংশ ছাড় দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগামী ছ’মাস তারা এই সুবিধা পাবেন। এতে তাদের ভার খানিকটা হলেও লাঘব হবে এবং রোজগারের সুযোগ-সুবিধা বাড়বে বলে ধারণা আমাদের।

তিনি বলেন, তাঁত ও হস্তশিল্পের মানুষের জন্য ১ লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে ক্রেডিট কার্ডে সর্বোচ্চ খরচের সীমা ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বেধে দেওয়া হচ্ছে। সুদের উপর ৭ শতাংশ ছাড় পাবেন তারা। ১ অক্টোবর থেকে মহিলা ও অল্পবয়সী ব্যবসায়ীদের জন্য উপত্যকার ব্যাংকগুলিতে বিশেষ ডেস্ক চালু করা হবে। প্রয়োজনে সেখানে তাদের কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থাও করা হবে।

জম্মু-কাশ্মির আপনি পার্টির প্রেসিডেন্ট আলতাফ বুখারি বলেন, ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার এবং করোনার ধাক্কা, দুইয়ে মিলিয়ে যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, সরকারের এই প্যাকেজ তার সামনে কিছুই নয়।

বুখারি আরও বলেন, সব মিলিয়ে ৪০ হাজার কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়েছে আমাদের। তার সামনে ১ হাজার ৩৫০ কোটি টাকার প্যাকেজ সমুদ্রে এক ফোঁটা জলের চেয়ে বেশি নয়।