স্টার্ফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ (১২ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের (ডিজিএফআই) কর্মকর্তা-কর্মচারিদের জন্য নবনির্মিত দু’টি আবাসিক ভবন এবং একটি অফিসার্স মেস-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে গোয়েন্দা বিভাগকে দুর্নীতি, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস এবং মাদকের হাত থেকে সমাজকে রক্ষা করতে সততা, নিষ্ঠার সঙ্গে ডিজিএফআই কর্মকর্তা-কর্মচারিদের দায়িত্ব পালন করতে হবে।

এসময় তিনি ডিজিএফআই কর্মকর্তা-কর্মচারিদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, দেশের বর্তমান উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখা একান্তভাবে দরকার। দেশের মানুষের শক্তিকে আমাদের উন্নয়নের কাজে লাগাতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করে এ তথ্য জানান।

ডিজিএফআই কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতিহাসটা জানতে হবে, দেশকে জানতে হবে, দেশকে ভালোবাসতে হবে, দেশের জন্য কাজ করতে হবে, দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, বা দুর্নীতি, মাদক এগুলোর হাত থেকে আমাদের সমাজকে রক্ষা করতে হবে, সমাজকে এখান থেকে আমাদের বাঁচাতে হবে। তাহলেই আমাদের এই যুব সমাজের মেধা আমরা কাজে লাগাতে পারব। দেশের মানুষের শক্তিটাকে আমরা উন্নয়নের জন্য কাজে লাগাতে পারব।

সেইভাবেই আমাদের দেশকে গড়তে হবে। কাজেই এইসব দিকে আমাদের প্রত্যেকেরই কিন্তু স্ব স্ব কর্মস্থলে দায়িত্ব রয়েছে। সেই দায়িত্বটা যথাযথভাবে পালন করতে হবে।

স্বাধীনতার পর জাতির পিতা একদিকে যেমন যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশ গড়ে তুলেছেন অপরদিকে সশস্ত্র বাহিনীকেও যথাযথভাবে গড়ে তুলেছেন জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার দেওয়া প্রতিরক্ষা নীতিমালা মেনেই আওয়ামী লীগ সরকার দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

দেশকে এগিয়ে নিতে শান্তি বজায় রাখার উপর গুরুত্ব দিয়ে তিনি বলেন, “আমাদের প্রচেষ্টা হচ্ছে আমরা চাই জাতির পিতার যে আকাঙ্ক্ষা ছিল যে, এই দেশ হবে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত দেশ, উন্নত সমৃদ্ধ দেশ, এদেশের প্রতিটি মানুষ পেট ভরে খাবে, হেসে-খেলে বাঁচবে। সুন্দরভাবে বাঁচবে, সেটাই আমাদেরও লক্ষ্য। আমরা সেটাই করতে চাই। তাই দেশের শান্তি বজায় রাখা একান্তভাবে দরকার।”

এ সময় গণভবন প্রান্তে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু হেনা মোস্তফা কামাল, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম উপস্থিত ছিলেন।