ডেস্ক রিপোর্ট: বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের টিকা সরবরাহ ও মানুষের শরীরে প্রয়োগ শুরু হয়েছে। টিকা সরবরাহ প্রক্রিয়াকে টার্গেট করে চীন ও রাশিয়া কিছু ঘটাতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড সিকিউরিটি সেন্টারের (এনসিএসসি) প্রধান।

ওয়াশিংটন পোস্ট আয়োজিত অনলাইন এক অনুষ্ঠানে এনসিএসসি প্রধান উইলিয়াম ইভানিনা বলেন, এটা খুবই জটিল সমস্যা। আমি অবশ্যই সেনাবাহিনীর নারী এবং পুরুষদের প্রশংসা করবো। সেই সঙ্গে এই (মার্কিন) সরকারকে ধন্যবাদ জানাবো এ কারণে যে, শত্রুপক্ষ টিকা সরবরাহ প্রক্রিয়া ব্যাহত করার চেষ্টা করছে জেনেও আমরা নিরাপদে টিকা পরিবহণের বিষয়টি সহজ করতে সক্ষম হয়েছি।

কোন কোন দেশ করোনা টিকা সরবরাহ প্রক্রিয়ায় হুমকি হিসেবে রয়েছে, সে ব্যাপারে করা এক প্রশ্নের জবাবে এনসিএসসি প্রধান বলেন, এই মুহূর্তে চীন ও রাশিয়া।

তবে এ ধরনের উদ্বেগ তিনিই প্রথম প্রকাশ করেননি। গত মাসে এফবিআই এর ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর বলেছেন, করোনা টিকা উৎপাদন ও সরবরাহ প্রক্রিয়ার সঙ্গে জাতি-রাষ্ট্র বিরোধীরা নানাভাবে যুক্ত হওয়ার পাঁয়তারা করছে।

আই বিএম এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, করোনাভাইরাসের টিকা সরবরাহের প্রক্রিয়ায় হিমাগারে টিকা রাখার বিষয়টিকে টার্গেট করছে একটি গ্রুপ। সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ইনফ্রাস্ট্রাকচার সিকিউরিটি অ্যাজেন্সি (সিআইএসএ) সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, টিকা পরিবহন ও  সংরক্ষণাগারে সাইবার হামলা রুখতে সতর্ক থাকতে হবে।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে এফবিআই প্রধান ক্রিস্টোফার  রে বলেছিলেন, করোনাভাইরাস সম্পর্কিত গবেষণা হাতিয়ে নেওয়ার টার্গেট করতে পারে চীনের হ্যাকাররা।

তিনি বলেছিলেন, আমরা চীনাদের খুব আক্রমণাত্মক ক্রিয়াকলাপ দেখছি। কিছু ক্ষেত্রে অন্যরাও আমাদের করোনাভাইরাস সম্পর্কিত গবেষণা, টিকা, চিকিৎসা ও পরীক্ষার প্রযুক্তি হাতিয়ে নেওয়ার টার্গেট করছে।

এদিকে ওয়ার্ল্ডয়োমিটারের দেওয়া তথ্যানুসারে যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে দুই কোটি ৪৩ লাখ ছয় হাজার ৪৩ জন এবং মারা গেছে চার লাখ পাঁচ হাজার দু’শ ৬১ জন।

সূত্র: জি ফাইভ, এএনআই