ডেস্ক রিপোর্ট: গালওয়ান সংঘর্ষের পরে গোটা ভারত জুড়ে যখন চিনা পণ্য বয়কটের ডাক ওঠে তখন চিনের সঙ্গে নেপালের  ‘সখ্যতা’ নজর কেড়েছিল সকলের। তবে চিন যে তাদের নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য নেপালের সাথে বন্ধুত্ব করেছিল সেটা অনেক দেরিতে হলেও বুঝতে পারল নেপালের সাধারণ মানুষ। এবার নেপাল জুড়ে চিনা প্রকল্প বয়কটের দাবি উঠেছে। চিনা প্রকল্প বন্ধের দাবিতে নেপাল জুড়ে প্রবল বিক্ষোভ দেখা যাচ্ছে। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে চাপে পড়ে গিয়েছে বেইজিং। কেননা এর আগে কোনওদিন নেপালে চিনা পণ্য বয়কটের দাবি উঠেনি।

কিছুদিন আগে নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলির (KP Sharma Oli) নির্বাচনী এলাকা দামাক পুরসভায় দামাক ক্লিন ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক (Damak Clean Industrial Park) তৈরির কাজ শুরু হয়। ওই প্রকল্পের পেয়েছিল চিনের কোম্পানি। আর্থিক বিনিয়োগও চিন করছিল। প্রথমে কোনও সমস্যা দেখা দেয়নি। তবে সম্প্রতি ওই প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণ করা জমির উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের দাবিতে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তাঁরা আন্দোলনে নেমেছেন এর জন্যে।

পাশাপাশি, ওই প্রকল্পে চিন কত টাকা বিনিয়োগ করছে সেই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশের দাবি উঠেছে। দামাকে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করেছিল একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। তাতে মানুষদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো ছিল। ওই সভায় চিনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতেও শোনা যায়। নেপালের বুদ্ধিজীবী ও শিক্ষাবিদদের একাংশ ওই আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, এর আগে নেপাল কৃষি মন্ত্রকের তরফে অভিযোগ করা হয়েছিল, নেপালের প্রায় ১০টি জায়গায় মোট ৩৩ হেক্টর জমি দখল করে নিয়েছে চিন। প্রসঙ্গত, চিনই একমাত্র দেশ যারা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরও নিজের সীমানা বাড়িয়ে গিয়েছে। সীমান্ত নিয়ে সংঘাতে জড়িয়েছে ভারত, নেপাল, ভিয়েতনাম, তাইওয়ান, মালয়েশিয়ার সঙ্গে।