কূটনৈতিক প্রতিবেদক: গত ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিনের প্রাক্কালে চীনা দূতাবাস তাঁকে উপহার পাঠিয়েছিল। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে খোঁজ নেয়। অবশেষে উপহার পাঠানোর ঘটনায় চীন দূতাবাসের কর্মকর্তারা দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

ঢাকায় সরকারি ও কূটনৈতিক সূত্রগুলোও রবিবার সন্ধ্যায় কালের কণ্ঠকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, চীনা দূতাবাস কর্মকর্তারা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করা এবং এর রাজনৈতিক স্পর্শকাতরতার বিষয়ে জানতেন না। তবে সারা বিশ্বে চীনের নীতি হলো সব রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা এবং সেই নীতি তারা অনুসরণ করে আসছেন। জন্মদিনে নেতাদের উপহার হিসেবে তারা ফুল পাঠিয়ে থাকেন। তবে যেহেতু খালেদা জিয়ার জন্ম তারিখ নিয়ে ‘স্বীকৃত বিতর্ক’ রয়েছে তাই তারা আগামীতে এ বিষয়ে সতর্ক থাকবেন।

প্রসঙ্গত, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার দিন ১৫ আগস্ট বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক দিবস। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কয়েক বছর আগে ১৫ আগস্ট জন্মদিন হিসেবে পালন করা শুরু করেন। বিভিন্ন সময় তাঁর চারটি জন্মদিন আলোচনায় এসেছে। এগুলো হলো ১৯৪৪ সালের ৫ আগস্ট, ১৯৪৭ সালের ১৯ আগস্ট, ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ও ১৯৪৬ সালের ১৫ আগস্ট।