ডেস্ক রিপোর্ট: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানিয়েছেন, ‘চুক্তি সম্পন্ন’। ব্রিটিশ সরকারের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, এটি দুই পক্ষের জন্যই স্বাক্ষরিত সবচেয়ে বড় দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি। অবশেষে কয়েকমাসের আলোচনা শেষে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ব্রিটেন একটি বাণিজ্য চুক্তিতে সম্মত হয়েছে।

২০১৬ সালে এক গণভোটের মাধ্যমে ইইউ থেকে বের হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ব্রিটেন। এরপর চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি সেই আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। তবে ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ে ইইউ-ব্রিটেনের মধ্যে কিভাবে বাণিজ্য চলবে তা নিয়ে একটি চুক্তির আলোচনা চলছিল। কিছুক্ষণ আগে একটি চুক্তিতে সম্মত হয়েছেন দুই পক্ষের নেতারা। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে চুক্তি সই না হলে দুই ব্লকের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যে নানা সমস্যা দেখা দিত। এখন দুই পক্ষ চুক্তিতে সম্মত হলেও ব্রিটেন ও ইইউর সদস্য রাষ্ট্রসমূহের সংসদে এটি পাস হতে হবে।

চুক্তি নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে গত কয়েকদিন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন নিজেদের মধ্যে বেশ কয়েকবার কথা বলেছেন। বুধবার রাত থেকেই চুক্তিতে সম্মত হওয়ার কথা শোনা যাচ্ছিল। তারপরও সারারাত আলোচনা চলে। এরপর বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই চুক্তির খবর আশা করা হচ্ছিল।

আলোচনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ব্রেক্সিটের পর মাছ ধরার কোটা ব্যবস্থা নির্ধারণ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মতানৈক্য ছিল। সে কারণে চুক্তিতে পৌঁছতে এত সময় লেগেছে।

সূত্র: ডয়চে ভেলে বাংলা।