নিজস্ব প্রতিনিধি: আজ (১৬ ফেব্রুয়ারি) মঙ্গলবার দেশব্যাপী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব বিদ্যাদেবী সরস্বতী পূজা। এই উৎসবে মাঘের পঞ্চমী তিথিতে বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতীর চরণে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করবেন ভক্তবৃন্দ।
যদিও করোনা মহামারির কারণে উৎসবে কিছুটা নিরুত্তাপ দেখা দেবে। তথাপিও স্বাস্থ্যবিধি মেনেই অনুষ্ঠিত হবে বাণী অর্চণা।
অজ্ঞতার অন্ধকার দূর করতে কল্যাণময়ী দেবীর চরণে প্রণতি জানাবেন বিদ্যার্ধীরা।
সনাতন ধর্মালম্বিদের মতে দেবী সরস্বতী সত্য, ন্যায় ও জ্ঞানালোকের প্রতীক। বিদ্যা, বাণী ও সুরের অধিষ্ঠাত্রী। ধর্মীয় বিধান অনুসারে সাদা রাজহাঁসে চড়ে বিদ্যা ও সুরের দেবী সরস্বতী পৃথিবীতে আসেন।

‘সরস্বতী মহাভাগে বিদ্যে কমললোচনে/ বিশ্বরূপে বিশালাক্ষী বিদ্যাংদেহী নমোহ তুতে’ সনাতন ধর্মাবলম্বীরা এই মন্ত্র উচ্চারণ করে বিদ্যা ও জ্ঞান অর্জনের জন্য দেবী সরস্বতীর অর্চনা করবেন।

এদিকে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সনাতন ধর্মাবলম্বী সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন।

সরস্বতী পূজা উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা আজ সকালে থেকেই বাণী অর্চনাসহ নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে।
রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের মন্দিরগুলো ইতিমধ্যেই সাজানো হয়েছে আলোক সজ্জায়।আর অনুষ্ঠানমালায় রয়েছে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় আলোচনাসভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা আরতি, আলোকসজ্জা প্রভৃতি।

তবে করোনাভাইরাসের কারণে সারা দেশের স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় প্রতি বছরের ন্যায় এবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ হলে সাড়ম্বরে বিদ্যা ও আরাধনার দেবী সরস্বতীর পূজার আয়োজন হচ্ছে না।
তবে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দির, রামকৃষ্ণমিশন, খামারবাড়ী কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটসহ অনেক স্থানেই হবে দেবীর পূূজা।
অনুষ্ঠান উপলক্ষ‌্যে দেশব্যাপী অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা।